শব্দ ও শব্দের শ্রেণিবিভাগ (বাংলা ২য়পত্র MCQ)

শব্দ শব্দের শ্রেণিবিভাগ (বাংলা ২য়পত্র MCQ): বাংলায় শুদ্ধভাবে লিখার জন্য ও শুদ্ধ উচ্চারণে পড়ার জন্য ব্যাকরণের প্রতিটি নিয়ম জানা সবার জন্য আবশ্যক। এখানে শব্দ ও শব্দের শ্রেণীবিভাগ বিস্তারিত দেওয়া হয়েছে। এবং বাংলা ব্যাকরণের ৫০টি নৈর্বক্তিক দেওয়া হয়েছে।

শব্দ <a href=ও শব্দের শ্রেণিবিভাগ (বাংলা ২য়পত্র MCQ)” class=”wp-image-9995″/>

বাংলা ব্যাকরণ: শব্দ ও শব্দের শ্রেণিবিভাগ

শব্দ: সাধারণত  অর্থবোধক ধ্বনিকে শব্দ বলে। আবার এক বা একাধিক বর্ণ মিলে কোন অর্থ প্রকাশ করলে তাকে শব্দ বলে। শব্দ বাক্যের ক্ষুদ্রতম একক।

শব্দের শ্রেণিবিভাগ: বাংলা ভাষায় শব্দকে তিনভাবে শ্রেণিবিভাগ করা যায়। যথা-

  ক. গঠনগতভাবে:  

গঠনগতভাবে শব্দ দুই প্রকার। যথা-

ক.১. মৌলিক শব্দ ও
ক.২. সাধিত শব্দ।

ক.১. মৌলিক শব্দ: যে সব শব্দকে বিশ্লেষণ করা যায় না, সে সব শব্দকে মৌলিক শব্দ বলে। উদাহরণস্বরূপ- গোলাপ, বই, হাত, লাল ইত্যাদি।

ক.২. সাধিত শব্দ: যে সব শব্দকে বিশ্লেষণ করা যায়, সে সব শব্দকে সাধিত শব্দ বলে। উদাহরণস্বরূপ-

উপসর্গযোগে- উপহার, উপকার, পরাজয় ইত্যাদি;
প্রত্যয়যোগে- চলন্ত, ঢাকাই, পড়ন্ত ইত্যাদি;
সমাসযোগে- নীলপদ্ম, নীলাকাশ ইত্যাদি।

  খ. অর্থগতভাবে:  

অর্থগতভাবে শব্দ তিন প্রকার। যথা-
খ.১. যৌগিক শব্দ
খ.২. রূঢ় বা রূঢ়ি শব্দ ও
খ.৩. যোগরূঢ় শব্দ।

খ.১. যৌগিক শব্দ: সে সব  শব্দের ব্যুৎপত্তিগত ও ব্যবহারিক অর্থ একই রকম, সে সব শব্দকে যৌগিক শব্দ বলে। উদাহরণস্বরূপ- 

কৃ + তব্য = কর্তব্য; অর্থ- যা করা উচিত
গৈ + অক = গায়ক; অর্থ- গান করে যে
বাবু + আনা= বাবুআনা; অর্থ- বাবুর ভাব।

খ.২. রূঢ় বা রূঢ়ি শব্দ: সে সব শব্দে মূল অর্থ ব্যতীত অন্য বিশিষ্ট অর্থ প্রকাশ করে, সে সব শব্দকে রূঢ় বা রূঢ়ি বলে। উদাহরণস্বরূপ- 

বাঁশি = বাঁশ + ই; অর্থ- বাঁশ দিয়ে তৈরি। কিন্তু প্রচলিত অর্থে বাদ্যযন্ত্রকে বোঝায়।
হস্তী = হস্ত + ইন; অর্থ- হস্ত আছে যার। কিন্তু প্রচলিত অর্থে হস্তী বলতে একটি পশুকে বোঝায়।  

শব্দ ও শব্দের শ্রেণিবিভাগ (বাংলা ২য়পত্র MCQ)

খ.৩. যোগরূঢ় শব্দ: সে সব শব্দ সমস্যমান পদের অর্থের অনুগামী না হয়ে অন্য অর্থ প্রকাশ করে, সে সব শব্দকে যোগরূঢ় বলে। উদাহরণস্বরূপ- 

পঙ্কজ = পঙ্কে জন্মে যা; পঙ্কে অনেক কিছুই জন্মে। কিন্তু পঙ্কজ বলতে সাধারণত পদ্মফুলকে বোঝানো হয়। এছাড়া অসুখ, জলধি, জলদ, রাজপুত, ডাকাত, মহাযাত্রা, সরোজ ইত্যাদি যোগরুঢ় শব্দ।

  গ. উৎপত্তি অনুসারে:  

উৎপত্তি অনুসারে শব্দ পাঁচ প্রকার। যথা-

  • ১. তৎসম শব্দ
  • ২. অর্ধ-তৎসম শব্দ
  • ৩. তদ্ভব শব্দ
  • ৪. দেশী শব্দ ও
  • ৫. বিদেশী শব্দ।

১. তৎসম শব্দ: যে সব শব্দ সংস্কৃত ভাষা থেকে কোন রূপ পরিবর্তন ছাড়াই সরাসরি বাংলা ভাষায় গৃহীত ও ব্যবহৃত হয়, সে সব শব্দকে তৎসম শব্দ বলে। উদাহরণস্বরূপ-

অন্ন, অশ্ব, গৃহ, চন্দ্র, দধি, ধর্ম, ধূম্র, নক্ষত্র, পত্র, বস্ত্র, ভবন, ভুবন, মনুষ্য, মস্তক, মুক্তি, সূর্য, শক্তি ইত্যাদি তৎসম বা সংস্কৃত শব্দ।

শব্দ ও শব্দের শ্রেণিবিভাগ (বাংলা ২য়পত্র MCQ)

গ.২. অর্ধ-তৎসম শব্দ: যে সব শব্দ সংস্কৃত ভাষা থেকে কিছুটা বিকৃত হয়ে বাংলা ভাষায় গৃহীত ও ব্যবহৃত হয়, সে সব শব্দকে অর্ধ-তৎসম শব্দ বলে। উদাহরণস্বরূপ-

ওষুধ, কন্ন, কুচ্ছিত, খিদে, গতর, গিন্নী, ছেরাদ্দ, ছিরি, জোছনা, নেমন্তন্ন, মন্তর, বিষ্টি, বোষ্টম ইত্যাদি অর্ধ-তৎসম বা সংস্কৃত শব্দ।

গ.৩. তদ্ভব শব্দ: যে সব সংস্কৃত শব্দ থেকে যুগ-যুগ ধরে বিবর্তনের পথে প্রাকৃত অপভ্রংশের মধ্য দিয়ে পরিবর্তিত হয়ে বাংলা ভাষায় গৃহীত ও ব্যবহৃত হয়, সে সব শব্দকে তদ্ভব শব্দ বলে। তদ্ভব হল পারিভাষিক শব্দ। উদাহরণস্বরূপ-

কান, কামার, চামার, চাঁদ, পাখি, মাথা, হাত, সাপ ইত্যাদি তদ্ভব শব্দ।

গ.৪. দেশী শব্দ: বাংলাদেশের আদি জনগোষ্ঠীর ভাষার  যে সব শাব্দিক উপাদান এখনও বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত হয়, সে সবকে দেশী শব্দ বলে। উদাহরণস্বরূপ-

নেংটি, বাবুই, হাঁড়ি, হোল, হুতুম ইত্যাদি দেশী শব্দ।

গ.৫. বিদেশী শব্দ: বিভিন্ন বিদেশি ভাষা থেকে যে সব শব্দ বাংলা ভাষায় গৃহীত ও ব্যবহৃত হয়েছে, সে সব শব্দকে বিদেশী শব্দ বলে। এসব শব্দের মধ্যে আরবি, ফারসি, ইংরেজি, চীনা, তুর্কি প্রভৃতি শব্দের প্রাধান্য পরিলক্ষিত হয়। উদাহরণস্বরূপ-

আরবি শব্দ- আল্লাহ, ঈমান, ওযু ইত্যাদি;

ফারসি শব্দ- আইন, কানুন, ফরিয়াদী ইত্যাদি; 

ইংরেজি শব্দ- অফিস (office), আফিম (opium), স্কুল (school) ইত্যাদি। [সংকলিত] 

শব্দ ও শব্দের শ্রেণিবিভাগ (বাংলা ২য়পত্র MCQ)

বাংলা ব্যাকরণের ৫০টি গুরুত্বপূর্ণ MCQ

১. নিচের কোনটি ফরাসি শব্দ?
ক) হরতাল
খ) পাদ্রি
গ) তোপ
ঘ) কুপন
সঠিক উত্তর: (ঘ)
২. কোনটি দেশি শব্দের উদাহরণ?
ক) লুঙ্গি
খ) খোকা
গ) সাবেক
ঘ) সম্রাট
সঠিক উত্তর: (খ)
৩. মানুষের কন্ঠ নিঃসৃত বাক্ সংকেতের সংগঠনকে কী বলে?
ক) ধ্বনি
খ) শব্দ
গ) বাক্য
ঘ) ভাষা
সঠিক উত্তর: (ঘ)
৪. কোনটি আরবি শব্দ?
ক) গোসল
খ) রোযা
গ) বেহেশত
ঘ) নামায
সঠিক উত্তর: (ক)
৫. কোনটি প্রশাসনিক শব্দ?
ক) নালিশ
খ) নমুনা
গ) কলেজ
ঘ) রপ্তানি
সঠিক উত্তর: (ক)
৬. কোন ভাষা হতে বাংলা ভাষার জন্ম হয়?
ক) পালি
খ) হিন্দি
গ) উড়িয়া
ঘ) বঙ্গকামরূপী
সঠিক উত্তর: (ঘ)
৭. বাংলাদেশ ছাড়া আর কোন অঞ্চলের মানুষের সর্বজনীন ভাষা বাংলা ভাষা?
ক) আসাম
খ) পশ্চিমবঙ্গ
গ) গুজরাট
ঘ) উত্তর প্রদেশ
সঠিক উত্তর: (খ)
৮. গুজরাটি শব্দের উদাহরণ কোনটি?
ক) হরতাল
খ) লুঙ্গি
গ) রিক্সা
ঘ) চাকু
সঠিক উত্তর: (ক)
৯. প্রাতিপাদিক কী?
ক) সাধিত শব্দ
খ) বিভক্তিযুক্ত শব্দ
গ) বিভক্তিহীন নামশব্দ
ঘ) উপসর্গযুক্ত শব্দ
সঠিক উত্তর: (গ)
১০. নিচের কোনগুলো পর্তুগিজ শব্দ?
ক) আলমারি, গুদাম
খ) চাহিদা, শিখ
গ) চা, চিনি
ঘ) কুপন, ডিপো
সঠিক উত্তর: (ক)

শব্দ ও শব্দের শ্রেণিবিভাগ (বাংলা ২য়পত্র MCQ)


১১. ভাষা কী?
ক) উচ্চারণের প্রতীক
খ) কন্ঠের উচ্চারণ
গ) ভাব প্রকাশের মাধ্যম
ঘ) ধ্বনির সমষ্টি
সঠিক উত্তর: (গ)
১২. ‘পাউরুটি’ শব্দটি কোন ভাষার?
ক) পর্তুগিজ
খ) ফরাসি
গ) গুজরাটি
ঘ) পাঞ্জাবি
সঠিক উত্তর: (ক)
১৩. কোনটি ফারসি শব্দ?
ক) যাকাত
খ) উকিল
গ) পয়গম্বর
ঘ) চশমা
সঠিক উত্তর: (ঘ)
১৪. ‘ডাক্তারখানা’ মিশ্র শব্দটি কোন ভাষার শব্দ নিয়ে গঠিত?
ক) ইংরেজি-ফারসি
খ) ইংরেজি-আরবি
গ) ইংরেজি-সংস্কৃত
ঘ) বাংলা-আরবি
সঠিক উত্তর: (খ)
১৫. নিচের কোনটি তৎসম শব্দ?
ক) চন্দ্র/ধর্ম
খ) গিন্নী
গ) ডিঙ্গা
ঘ) ঈমান
সঠিক উত্তর: (ক)
১৬. সংস্কৃত ভাষা থেকে আগত অপরিবর্তনীয় শব্দসমূহের নাম কী?
ক) তৎসম শব্দ
খ) তদ্ভব শব্দ
গ) অর্ধতৎসম শব্দ
ঘ) দেশি শব্দ
সঠিক উত্তর: (ক)
১৭. বক্তৃতায় ভাষার কোন রীতির ব্যবহার করা বাঞ্ছনীয়?
ক) সাধু
খ) চলিত
গ) কথ্য বাংলা
ঘ) আঞ্চলিক
সঠিক উত্তর: (খ)
১৮. কোনটি দেশি শব্দ নয়?
ক) পেট
খ) চাঙারী
গ) ঘর
ঘ) ঠোঙা
সঠিক উত্তর: (গ)
১৯. কোনটি ধর্মসংক্রান্ত ফারসি শব্দ?
ক) কুরআন
খ) রোযা/যাকাত
গ) নালিশ
ঘ) ঈদ
সঠিক উত্তর: (খ)
২০. বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের মধ্যযুগের প্রথম নিদর্শন কোনটি?
ক) মধুমালতী
খ) সিকান্দারনামা
গ) শ্রীকৃষ্ণকীর্তন
ঘ) বৈষ্ণব পদাবলি
সঠিক উত্তর: (গ)

শব্দ ও শব্দের শ্রেণিবিভাগ (বাংলা ২য়পত্র MCQ)


২১. ভাষাভাষী জনসংখ্যার দিক থেকে পৃথিবীতে বর্তমানে বাংলা ভাষার স্থান কততম
ক) চতুর্থ
খ) পঞ্চম
গ) ষষ্ঠ
ঘ) সপ্তম
সঠিক উত্তর: (ক)
২২. বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের যুগবিভাগ কয়টি?
ক) ৩টি
খ) ৪টি
গ) ৫টি
ঘ) ৬টি
সঠিক উত্তর: (ক)
২৩. কোনটি মিশ্র শব্দ নয়?
ক) পকেটমার
খ) চৌ-হদ্দী
গ) খ্রিষ্টাব্দ
ঘ) হেডমাস্টার
সঠিক উত্তর: (ঘ)
২৪. বাংলা ভাষার কোন রীতি নাটকের সংলাপ ও বক্তৃতার অনুপযোগী?
ক) চলিত রীতি
খ) কথ্য রীতি
গ) সাধুরীতি
ঘ) আঞ্চলিক রীতি
সঠিক উত্তর: (গ)
২৫. কোনটি খাঁটি বাংলা শব্দের উদাহরণ?
ক) ডাগর
খ) হাত
গ) কুলা
ঘ) সবগুলো
সঠিক উত্তর: (খ)
২৬. কোনটি প্রশাসনিক ও সাংস্কৃতিক ফারসি শব্দ?
ক) দফতর, দস্তখত
খ) জান্নাত, গোসল
গ) আমদানি, রপ্তানি
ঘ) আদালত, কানুন
সঠিক উত্তর: (ক)
২৭. সাধুভাষার বৈশিষ্ট্য কোনটি?
ক) গুরুগম্ভীর
খ) গুরুচন্ডালী
গ) অবোধ্য
ঘ) দুর্বোধ্য
সঠিক উত্তর: (ক)
২৮. ‘চলিত ভাষায় ক্রিয়াপদ ও সর্বনাম পদ সংকুচিত হয়’ – এ কথাটি –
ক) ভিত্তিহীন
খ) অবাস্তব
গ) সম্পূর্ণ সত্য
ঘ) আংশিক সত্য
সঠিক উত্তর: (গ)
২৯. বাংলা ভাষার কোন শব্দগুলোকে খাঁটি বাংলা শব্দও বলা হয়?
ক) তৎসম
খ) তদ্ভব
গ) অর্ধ তৎসম
ঘ) দেশি
সঠিক উত্তর: (খ)
৩০. তামিল ভাষার শব্দ কোনটি?
ক) পেট
খ) কুলা
গ) চুলা
ঘ) কুড়ি
সঠিক উত্তর: (ক)

শব্দ ও শব্দের শ্রেণিবিভাগ (বাংলা ২য়পত্র MCQ)


৩১. বাংলা ভাষার চলিত রীতির প্রবর্তন করেন কে?
ক) প্যারীচাঁদ মিত্র
খ) গিরীশচন্দ্র সেন
গ) প্রমথ চৌধুরী
ঘ) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
সঠিক উত্তর: (গ)
৩২. ‘লুঙ্গি’ কোন ভাষার শব্দ?
ক) গুজরাটি
খ) পাঞ্জাবি
গ) তুর্কি
ঘ) মায়ানমার / বর্মি
সঠিক উত্তর: (ঘ)
৩৩. নিচের কোন ব্যক্তি চলিত ভাষার ক্ষেত্রে অনন্য অবদান রেখেছেন?
ক) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
খ) কাজী নজরুল ইসলাম
গ) প্রমথ চৌধুরী
ঘ) ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর
সঠিক উত্তর: (গ)
৩৪. ‘আলপিন’ কোন ভাষার শব্দ?
ক) পর্তুগিজ
খ) ওলন্দাজ
গ) গুজরাটি
ঘ) তুর্কি
সঠিক উত্তর: (ক)
৩৫. ভাষা কিসের দ্বারা সৃষ্ট হয়?
ক) মনের সাহায্যে
খ) অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের সাহায্যে
গ) ঠোঁটের সাহায্যে
ঘ) বাগযন্ত্রের সাহায্যে
সঠিক উত্তর: (ঘ)
৩৬. ‘Oxygen’ – এর ভাবানুবাদমূলক প্রতিশব্দ কোনটি?
ক) উদযান
খ) সহযান
গ) অম্লজান
ঘ) অক্সিজেন
সঠিক উত্তর: (গ)
৩৭. বিশুদ্ধ চীরত ভাষা কোনটি?
ক) সামনে একটা বাঁশ বাগান পড়ল
খ) সামনে একটি বাঁশ বাগান পড়ল
গ) সামনে একটি বাঁশ বাগান পড়িল
ঘ) সম্মুখে একটি বাঁশ বাগান পড়ল
সঠিক উত্তর: (খ)
৩৮. কোনটি পারিভাষিক শব্দ?
ক) ইনসান
খ) টোপর
গ) বিশ্ববিদ্যালয়
ঘ) ডাক্তারখানা
সঠিক উত্তর: (গ)
৩৯. ‘চানাচুর’ কোন দেশি শব্দ?
ক) চীনা
খ) হিন্দি
গ) আরবি
ঘ) ফারসি
সঠিক উত্তর: (খ)
৪০. মধ্যযুগে বাংলা লেখ্য সাধুরীতির সামান্য নমুনা পাওয়া যায় –
ক) কাব্যসাহিত্যে
খ) দলিল-দস্তাবেজে
গ) পুঁথি সাহিত্যে
ঘ) চিঠিপত্রে
সঠিক উত্তর: (খ)

শব্দ ও শব্দের শ্রেণিবিভাগ (বাংলা ২য়পত্র MCQ)


৪১. বাংলা লেখ্য সাধুরীতির প্রকৃত বাংলা গদ্যরূপ কখন বিকাশ লাভ করে?
ক) মধ্যযুগের শুরুতে
খ) মধ্যযুগের মাঝামাঝি
গ) ইংরেজদের আগমনের পূর্বে
ঘ) ইংরেজদের আগমনের পরে
সঠিক উত্তর: (ঘ)
৪২. ভাষার কোন রীতি তদ্ভব শব্দবহুল?
ক) সাধুরীতি
খ) আঞ্চলিক কথ্য রীতি
গ) সাধু এবং চলিত উভয় রীতি
ঘ) চলিত রীতি
সঠিক উত্তর: (ঘ)
৪৩. সাধু ও চলিত রীতি বাংলা ভাষার কোন রূপে রয়েছে?
ক) লেখ্য
খ) কথ্য
গ) আঞ্চলিক
ঘ) উপভাষা
সঠিক উত্তর: (ক)
৪৪. অনার্য জাতির ব্যবহৃত শব্দকে কী শব্দ বলে?
ক) দেশি শব্দ
খ) বিদেশি শব্দ
গ) তৎসম শব্দ
ঘ) বাংলা শব্দ
সঠিক উত্তর: (ক)
৪৫. কোন শব্দগুচ্ছ সাধুভাষার উদাহরণ?
ক) তুলা, সহিত
খ) জুতো, মাথা
গ) পড়িল, দেখে
ঘ) বুনো, তুলো
সঠিক উত্তর: (ক)
৪৬. ‘বেহেস্ত’ কোন ভাষার শব্দ?
ক) বিদেশি
খ) আরবি
গ) ফারসি
ঘ) পর্তুগিজ
সঠিক উত্তর: (গ)
৪৭. কিসের ভেদে ভাষার পার্থক্য ও পরিবর্তন ঘটে?
ক) দেশ ও কালভেদে
খ) দেশ, কাল ও ব্যক্তিভেদে
গ) কাল, পরিবেশ ও ব্যক্তিভেদে
ঘ) দেশ, কাল ও পরিবেশভেদে
সঠিক উত্তর: (ঘ)
৪৮. আরবি ভাষার শব্দ নিচের কোনটি?
ক) দরবার
খ) দৌলত
গ) দোয়াত
ঘ) দফতর
সঠিক উত্তর: (গ)
৪৯. ‘দারোগা’ শব্দটি কোন ভাষা থেকে বাংলা ভাষায় এসেছে?
ক) ওলন্দাজ
খ) তুর্কি
গ) ফরাসি
ঘ) গুজরাটি
সঠিক উত্তর: (খ)
৫০. সাধুভাষা কোথায় অনুপযোগী?
ক) কবিতার পঙক্তিতে
খ) গানের কলিতে
গ) গল্পের বর্ণনায়
ঘ) নাটকের সংলাপে
সঠিক উত্তর: (ঘ)

এই শব্দ ও শব্দের শ্রেণিবিভাগ (বাংলা ২য়পত্র MCQ) ছাড়াও আরো জানতে ক্লিকঃ