আইসিটি ২য় অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর( ICT 2nd Chapter CQ Question and Answer)

আইসিটি ২য় অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর( ICT 2nd Chapter CQ Question and Answer) প্রশ্ন ও উত্তরঃ

কমিউনিকেশন সিস্টেম ও নেটওয়ার্কিং এঁর বোর্ড সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর , এইচএসসি শিক্ষার্থীরা তোমাদের পরীক্ষার প্রস্তুতি ও চর্চার জন্য দেওয়া হয়েছে।

একনজরে দেখোঃ

(ঢাকা বোর্ড ২০১৯)

১। x কলেজ ঢাকা শহরের একটি স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান । দেশের বিভিন্ন জেলায় তাদের আরাে পাঁচটি শাখা আছে । অধ্যক্ষ সাহেব মূল প্রতিষ্ঠানে বসেই সবগুলাে শাখা সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য একটি নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা গড়ে তুলেছেন । পরবর্তীতে শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের অনুরােধে ইন্টারনেট ব্যবহার করে স্বল্প খরচে উন্নত সেবা এবং যতটুকু ব্যবহার ততটুকু বিল প্রদান এমন একটি পরিসেবার কথা ভাবছিলেন।

ক. ব্লুটুথ কী?
খ. ডেটা ট্রান্সমিশনে সিনক্রোনাস সুবিধাজনক ব্যাখ্যা কর।
গ. উদ্দীপকের আলােকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও তার শাখাগুলােকে পরিচালনার জন্য কোন ধরনের নেটওয়ার্ক স্থাপন করেছিল? তার বর্ণনা দাও।
ঘ. উদ্দীপকের আলােকে অধ্যক্ষ সাহেব যে নতুন পরিসেবার কথা ভাবছিলেন তা বাস্তবায়ন সম্ভব কি-না? বিশ্লেষণপূর্বক মতামত দাও।

ক ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কিং জগতে ব্লুটুথ হচ্ছে এমন একটি পদ্ধতি । যা স্বল্প দূরত্বের মধ্যে তারবিহীনভাবে দুটি ডিভাইসের মধ্যে ডেটা আদান-প্রদান করে থাকে।

খ) ডেটা ট্রান্সমিশনে সিনক্রোনাস সুবিধাজনক, কারণ—
১। এই ট্রান্সমিশনের দক্ষতা তুলনামূলকভাবে অনেক বেশি ।
২। এ পদ্ধতিতে বিরতিহীনভাবে প্রেরক যন্ত্র থেকে গ্রাহক যন্ত্রে ডেটা পাঠানাে যায় ।
৩। এর গতি তুলনামূলকভাবে বেশি।
৪। ট্রেইলার ব্লকের শেষ নির্দেশ করে এবং কোনাে কোনাে ক্ষেত্রে ব্লকের ভেতরকার ভুল নির্ণয় ও সংশােধন করে ।
৫। ডেটার আকার ছােট এবং ডেটা-রেট বেশি বলে ট্রান্সমিশনে সময় কম লাগে।

গ প্রশ্নের উত্তর

গ) উদ্দীপকের আলােকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও তার শাখাগুলােকে পরিচালনার জন্য স্থাপনকৃত নেটওয়ার্ক হলাে WAN । একটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ এক শহরের সাথে অন্য শহর, এক দেশের সাথে অন্য দেশ, এক মহাদেশের সাথে অন্য মহাদেশের মধ্যে কম্পিউটার নেটওয়ার্কিং ব্যবস্থাকে WAN বলে । ভৌগােলিক এলাকায় অবস্থিত একাধিক LAN, ও MAN কে নিয়ে WAN নেটওয়ার্ক গড়ে ওঠে। বিস্তৃত এলাকা নিয়ে গড়ে ওঠে বলে LAN ও MAN-কে সংযুক্ত করার জন্য বিশেষ ডিভাইস ও টেকনােলজি ব্যবহার করা হয়।

এ ধরনের নেটওয়ার্কের জন্য মাধ্যম হিসেবে টেলিফোন লাইন, অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবল, মডেম, রেডিও ওয়েভ, মাইক্রোওয়েভ, স্যাটেলাইট ইত্যাদি ব্যবহার করা হয় । এক্ষেত্রে ঢাকা শহরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির সাথে দেশের বিভিন্ন জেলার পাঁচটি শাখার মধ্যে নেটওয়ার্কিং ব্যবস্থা গড়ে তােলা হয়, ফলে মুহূর্তের মধ্যে মূল শাখার সাথে অন্য শাখাগুলাে শিক্ষা কার্যক্রম ভাগাভাগি করতে পারে । মেমােরি ব্যবশ্বর মাধ্যমে ডেটা সংরক্ষণ ও প্রয়ােজনে শিক্ষার্থীর সাথে অল্প সময়ের মধ্যে তথ্য পাঠানাে যায় । এ নেটওয়ার্কে শিক্ষার্থীরা এক কলেজের শাখায় বসে অন্য শাখার শ্রেণি কক্ষের ক্লাসেও অংশগ্রহণ করতে পারে। তাছাড়া কলেজে না গিয়েও শিক্ষার্থীরা ক্লাসে অংশ নিতে পারবে। শিক্ষককে প্রশ্ন করতে ও উত্তর জানতে পারবে।

ঘ প্রশ্নের উত্তর

ঘ উদ্দীপকের আলােকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তার শাখাগুলােকে পরিচালনার জন্য নতুন গরিসেবা হলাে ক্লাউড কম্পিউটিং । বিভিন্ন ধরনের কম্পিউটার রিসাের্স যেমন- নেটওয়ার্ক, সার্ভার,স্টোরেজ, সফটওয়্যার ও সার্ভিস নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ক্রেতার সুবিধা অনুসারে, চাহিবামাত্র ও চাহিদা অনুসারে সহজে ব্যবহার করার সুযােগ প্রদান ও ভাড়া দেওয়ার সিস্টেম হলাে ক্লাউড কম্পিউটিং। এটি অবকাঠামােগত, প্লাটফর্ম ও সফটওয়্যার সেবা প্রদান করে থাকে।

ক্লাউড কম্পিউটিং এর মাধ্যমে কোন ধরনের সফটওয়্যার বসানাে হবে, কীভাবে কাজ চালানাে হবে, কম্পিউটারগুলাে কীভাবে নিজেদের মধ্যে যােগাযােগ করবে, সবকিছু ব্যবহারকারী নিজের ইচ্ছেমতাে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে এ পরিসেবায় ইন্টারনেট ও ওয়েব ব্রাউজার ব্যবহার করে Google docs দিয়ে মাইক্রোসফট অফিসের প্রায় সব কাজ করা যায়।

এ ব্যবস্থায় ব্যবহারকারীর যত সুবিধা প্রয়ােজন হয় সেবাদাতা তত পরিমাণ সেবা দিতে পারে, এতে ক্রেতার আগে থেকেই কোনাে সেবা সংরক্ষণ করতে হয় না । ক্রেতা যতটুকু ব্যবহার করবে,শুধুমাত্র ততটুকু মূল্য পরিশােধ করবে । এছাড়া এটি সবসময় ব্যবহার করা যায়। এটি মূলত একটি ব্যবসায়িক মডেল, যার দ্বারা ব্যবহারকারী সার্ভিস প্রদানকারী উভয়েই উপকৃত হন । ফলে অধ্যক্ষ সাহেব সহজেই নতুন পরিসেবাটি অর্থাৎ ক্লাউড কম্পিউটিং বাস্তবায়ন করতে পারবে ।

আইসিটি ২য় অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর( ICT 2nd Chapter CQ Question and Answer)

(রাজশাহী বোর্ড ২০১৯)

২) রহিম সাহেব তার ছয় বছরের ছেলের জন্য একটি খেলনা উড়ােজাহাজ কিনে আনেন । তিনি রিমােট ব্যবহার করে উড়ােজাহাজটির উড্ডয়ন দেখালেন । অন্য দিকে তাঁর বড় ছেলে ল্যাপটপের সাথে ক্যাবলের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন । রহিম সাহেব তার স্মার্টফোনে রাউটারের সাহায্যে তারবিহীন ইন্টারনেট ব্যবহার করেন ।

ক, ডেটা ট্রান্সমিশন মােড কী?
খ. স্যাটেলাইটে ব্যবহৃত ওয়েভ ব্যাখ্যা কর।
গ. উদ্দীপকের উড়ােজাহাজ উড্ডয়নের প্রযুক্তি ব্যাখ্যা কর।
ঘ, রহিম সাহেব ও তাঁর বড় ছেলের ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে কৌশলগত পদ্ধতি বিশ্লেষণ কর।

ক) দুটি ডিভাইসের মধ্যে তথ্য ৰা ডেটা প্রবাহের দিক নির্দেশকে ডেটা ট্রান্সমিশন মােড় বলে।

খ) স্যাটেলাইটে ব্যবহৃত ওয়েভটি হলাে স্যাটেলাইট মাইক্রোওয়েভ।মােটামুটিভাবে 1 গিগাহার্টজ হতে 100 গিগাহার্টজের ভিতরে ইলেকট্রোম্যাগনেটিক স্পেকট্রাম ফ্রিকোয়েন্সি ব্যান্ডকেই মাইক্রোওয়েভ বলে । এ ধরনের ইলেকট্রোম্যাগনেটিক ওয়েভ সাধারণত 2 গিগাহার্টজ বা তার অধিক ফ্রিকোয়েন্সিতে ডেটা ট্রান্সমিট করতে পারে । এটি রেডিও ওয়েভের মতাে চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে না, সােজাসুজি যায় । তাই এই কমিউনিকেশনের জন্য ট্রান্সমিটার এন্টেনা ও রিসিভার এন্টেনাকে মুখােমুখি থাকতে হয় বা সংযােগ লাইন অব সাইট (LOS : Line of site) অবলম্বন করতে হয়।

(গ) উদ্দীপকের উড়ােজাহাজ উড্ডয়নের প্রযুক্তি হলাে ইনফ্রারেড ।ডিভাইস থেকে ডিভাইসে তথ্য পাঠানাের জনপ্রিয় প্রযুক্তি হলাে ইনফ্রারেড। এ প্রযুক্তিতে তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের মাধ্যমে তড়িচ্চুম্বকীয় পদ্ধতিতে তথ্য পাঠানাে হয়ে থাকে। ইনফ্রারেড এর ফ্রিকোয়েন্সি 300GHz- 430 THz। এটি সাধারণত 0.7 pm – 300 pm দূরত্বের মধ্যে তথ্য আদান-প্রদান করতে পারে। ইনফ্রারেডের ডেটা পারাপারের গতি ক্যাবল মাধ্যমের তুলনায় কম।

তবে এটি স্বল্প বিদ্যুৎ খরচে যেকোনাে ডিভাইসের সাথে সমন্বিতভাবে কাজ করতে পারে। এটি এক কক্ষ থেকে অন্য কক্ষে দেয়াল ভেদ করে চলাচল করতে পারে না।সূর্যালােক, কুয়াশা, বৃষ্টি, খারাপ আবহাওয়াতে ইনফ্রারেড প্রযুক্তিতে ডেটা প্রেরণে সমস্যা দেখা দেয়। এটি যেকোনাে ডিভাইসের সাথে সমন্বিতভাবে কাজ করতে পারে। রাস্তার ট্রাফিক সংকেতে, গৃহসামগ্রী ও বিভিন্ন ধরনের খেলনায় এর ব্যবহার রয়েছে ।

ঘ প্রশ্নের উত্তর

ঘ রহিম সাহেব স্মার্টফোনে রাউটারের সাহায্যে তারবিহীন ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। অন্যদিকে তার বড় ছেলে ক্যাবলের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। রহিম সাহেব ও তার বড় ছেলের ইন্টারনেট ব্যবহারের কৌশলগত পদ্ধতি বিশ্লেষণ করা হলাে :

তার মাধ্যমতারবিহীন মাধ্যম
১. ডেটা পারাপারে উচ্চ গতি সম্পন্ন।১. তার মাধ্যমের তুলনায় নিম্ন গতিসম্পন্ন।
২. ট্রান্সমিশন মাধ্যম হিসেবে কো-এক্সিয়াল ক্যাবল, টুইস্টেড পেয়ার ক্যাবল ও অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবল ব্যবহৃত হয়।২. ট্রান্সমিশন মাধ্যম হিসেবে বেতার তরঙ্গ, মাইক্রোওয়েভ ও ইনফ্রারেড ব্যবহৃত হয়।
৩. খরচ কম।৩. ব্যয়বহুল।
৪. উচ্চ ব্যান্ডউইথ ফ্রিকোয়েন্সি প্রদান করে।৪. ব্যান্ডউইথ নিম্নগতির।
৫. হাব এবং সুইচ ব্যবহার করে নেটওয়ার্ক কাভারেজ এরিয়া এক্সটেনশন করা যায়। ৫. পরস্পরের সঙ্গে সংযুক্ত একাধিক ওয়্যারলেস বেজ স্টেশন এর মাধ্যমে বিশাল এলাকাকে নেটওয়ার্ক কাভারেজের মধ্যে আনা সম্ভব।
৬. সার্ভিস কোয়ালিটি বেশ ভালাে৬. সার্ভিস কোয়ালিটি তুলনামূলকভাবে খারাপ।

আইসিটি ২য় অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর( ICT 2nd Chapter CQ Question and Answer)

(রা, বাে. ২০১৯)

৩) দোলনচাঁপা তার বাবা ভিন্ন ভিন্ন প্রজন্মের মােবাইল ফোন নিয়ে আলাপ করছেন। দোলনচাঁপার বাবা পূর্বে যে মােবাইলটি ব্যবহার করতেন সেটি আকারে একটু বড় হলেও ঐ মােবাইল ফোন দিয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করা যেতাে। দোলনচাঁপা বলল, বর্তমানে আমরা ইন্টারনেট এর মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী কিছু সুবিধা বা পরিসেবা গ্রহণ করতে পারি।

ক. বুটুথ কী?
খ, যে টপােলজিতে সবগুলাে কম্পিউটারের সাথে সবগুলাে কম্পিউটার সংযুক্ত তা ব্যাখ্যা কর।
গ. উদ্দীপকে দোলনচাঁপার বাবার মােবাইল ফোনটি কোন প্রজন্মের সেটির বৈশিষ্ট্যসমূহ ব্যাখ্যা কর।
ঘ, দোলনচাঁপা বিশ্বব্যাপী সুবিধা গ্রহণ করার জন্য যে প্রযুক্তি ব্যবহার করে তা বিশ্লেষণ কর।

ক ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কিং জগতে ব্লুটুথ হচ্ছে এমন একটি পদ্ধতি যা স্বল্প দূরত্বের মধ্যে তারবিহীনভাবে দুটি ডিভাইসের মধ্যে ডেটা আদান-প্রদান করে থাকে।

খ যে টপােলজিতে সবগুলাে কম্পিউটারের সাথে সবগুলাে কম্পিউটার যুক্ত থাকে তা হলাে মেশ টপােলজি। এতে নেটওয়ার্কভুক্ত কম্পিউটারগুলাে পরস্পরের সাথে সরাসরি অপেক্ষাকৃত দ্রুত ডেটা আদান-প্রদান করতে পারে ।এতে কেন্দ্রীয় সার্ভার বা ডিভাইসের দরকার পড়ে না। এই নেটওয়ার্কভূক্ত কম্পিউটারগুলাের মধ্যে পারস্পরিক সংযােগকে পয়েন্ট-টু-পয়েন্ট (পিয়ার-টু-পিয়ার) লিংক বলা হয়। এই টপােলজিতে n সংখ্যক নােডের জন্য প্রতিটি নােডে (n-1) টি সংযােগের প্রয়ােজন হয়। ডেটা যােগাযােগের নির্ভরশীলতাই যেখানে মুখ্য সেসব ক্ষেত্রে মেশ টপােলজি ব্যবহার হয়।

গ উদ্দীপকে দোলনচাঁপার বাবার মােবাইল ফোনটি দ্বিতীয় প্রজন্মের। দ্বিতীয় প্রজন্মের মােবাইল সিস্টেমের বৈশিষ্ট্য হলাে :
১. ডিজিটাল পদ্ধতির রেডিও সিগন্যাল ব্যবহৃত হয় ।
২. নেটওয়ার্ক GSM এবং CDMA স্ট্যান্ডার্ড ।
৩. সীমিত আকারে রােমিং সুবিধা বিদ্যমান।
৪. সর্বপ্রথম প্রি-পেইড পদ্ধতি চালু এবং এমএমএস এবং এসএমএস সেবা চালু।
৫ Handoff সুবিধা চালু।
৬. ইন্টারনেট সংযােগ, মােবাইল ব্যাংকিং, নিউজ হেডলাইন ও বিজ্ঞাপন প্রচার শুরু।
৭. সমসাময়িক অন্যান্য ফোন সেটের তুলনায় আকারে ছােট ও ওজনে হালকা।

ঘ প্রশ্নের উত্তর

ঘ দোলনচাঁপা বিশ্বব্যাপী সুবিধা গ্রহণ করার জন্য ক্লাউড কম্পিউটিং পরিসেবা গ্রহণ করেন।বিভিন্ন ধরনের কম্পিউটার রিসাের্স যেমন- নেটওয়ার্ক, সার্ভার, স্টোরেজ, সফটওয়্যার ও সার্ভিস নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ক্রেতার সুবিধা অনুসারে, চাহিবামাত্র ও চাহিদা অনুসারে সহজে ব্যবহার করার সুযােগ প্রদান ও ভাড়া দেওয়ার সিস্টেম হলাে ক্লাউড কম্পিউটিং।

এতে ওয়েবে সকল ধরনের কার্যক্রম করা সম্ভব। এক্ষেত্রে প্রত্যেক ব্যবহারকারীকে ক্লায়েন্ট হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে। ক্লাউড শব্দটি ইন্টারনেটের রূপক হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। আকাশে সর্বত্র যেভাবে মেঘ ছড়িয়ে আছে, ইন্টারনেটও ঠিক তেমনি সর্বত্র জালের মত ছড়িয়ে আছে। ইন্টারনেটের এই ক্লাউড থেকে সর্বনিম্ন খরচে সর্বোচ্চ সুবিধা পাওয়ার উপায় হিসেবেই ক্লাউড কম্পিউটিং ধারণাটির উৎপত্তি। এ ক্লাউড কম্পিউটিং এর মাধ্যমে একটি নেটওয়ার্ক এর আওতাভুক্ত সকল কম্পিউটারই একই হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারে এবং কম সময়ে অধিক ক্ষমতাসম্পন্ন অন-লাইন কম্পিউটিং সেবা লাভ করে।

আইসিটি ২য় অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর( ICT 2nd Chapter CQ Question and Answer)

(যশোর বোর্ড ২০১৯)

৪। রাজ আইসিটি ক্লাসে শিক্ষকের আলােচনা হতে পারে যে, ডেটা কমিউনিকেশনে একটি পদ্ধতিতে ডেটা ক্যারেক্টার বাই ক্যারেক্টার ট্রান্সমিট হয় এবং অপর একটি পদ্ধতিতে ডেটা ব্লক আকারে ট্রান্সমিট হয়। সে তার বাসায় তারবিহীন ইন্টারনেট সংযােগ নেয়। ফলে সে দ্রুতগতির ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারে ।

ক, ক্লাউড কম্পিউটিং কী?
খ. আলােক সিগন্যালে ডেটা স্থানান্তরের মাধ্যমটি ব্যাখ্যা কর।
গ. উদ্দীপকে ইন্টারনেট সংযােগ ব্যবস্থায় ব্যবহৃত প্রযুক্তি কী? ব্যাখ্যা কর ।
ঘ. উদ্দীপকে ট্রান্সমিশন পদ্ধতি দুটির মধ্যে কোনটির দক্ষতা বেশি? বিশ্লেষণপূর্বক মতামত দাও ।

ক নিজস্ব ছােট্ট কম্পিউটারে ইন্টারনেট সংযােগের মাধ্যমে একটি বিশালাকার কম্পিউটার ভাড়া করে যথেচ্ছা ব্যবহার এবং যাবতীয় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সেই কম্পিউটারে সংরক্ষণের ধারণাটি হলাে ক্লাউড কম্পিউটিং।

খ আলােক সিগন্যালে ডেটা স্থানান্তরের মাধ্যমটি হলাে ফাইবার অপটিক্যাল ক্যাবল। ফাইবার অপটিক ক্যাবল বিশেষভাবে পরিশুদ্ধ। কাচের তৈরি অত্যন্ত সূক্ষ্ম তন্তু। এ ক্যাবলের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এটি ইনফ্রারেড আলাের একটি রেঞ্জের ভেতর (1300-1500 nm) অবিশ্বাস্য রকম স্বচ্ছ, তাই শােষণের কারণে বিশেষ কোনাে লস ছাড়াই এর ভেতর দিয়ে সিগন্যাল দীর্ঘ দূরত্বে নেওয়া যায় ।

গ) উদ্দীপকে ইন্টারনেট সংযােগ ব্যবস্থায় ব্যবহৃত প্রযুক্তি হলাে Wi-Fi। Wi-Fi হচ্ছে LAN ভিত্তিক ওয়্যারলেস ব্যবস্থা। এ ব্যবস্থায় বহনযােগ্য কম্পিউটারের যন্ত্রপাতির সাথে সহজে ইন্টারনেট যুক্ত করা যায়। তারবিহীন নেটওয়ার্কিং প্রযুক্তি যা উচ্চ গতির ইন্টারনেট ও নেটওয়ার্ক সংযােগসমূহ সরবরাহের জন্য বেতার তরঙ্গকে ব্যবহার করে তাকে Wi-Fi বলে।

এটি ওয়্যারলেস লােকাল এরিয়া নেটওয়ার্ক এর জন্য 802.11 প্রণীত স্ট্যান্ডার্ড। একটি নির্দিষ্ট কভারেজ এলাকা বা হটস্পট এর নেটওয়ার্ক সৃষ্টির জন্য এটি ব্যবহৃত হয়। বিগত কয়েক বছরে Wi-Fi প্রচুর জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। বিভিন্ন ISP প্রতিষ্ঠান প্রথমে যােগাযােগ ব্যবস্থা বৃদ্ধির জন্য বিনামূল্যে Wi-Fi সংযােগ দিলেও পরবর্তীতে মাসিক চাদার বিনিময়ে সার্ভিস দিয়ে আসছে। Wi-Fi একটি ওয়্যারলেস প্রযুক্তি যা সেলফোনের মতাে কাজ করে। পার্সোনাল কম্পিউটার, ভিডিও গেইম, স্মার্ট ফোন, ডিজিটাল অডিও প্লেয়ারে Wi-Fi এডাপ্টার থাকে তবে এটি অডিও প্লেয়ার ইন্টারনেটের সাথে Wi-Fi যুক্ত করা যায়।

ঘ প্রশ্নের উত্তর

ঘ ডেটা কমিউনিকেশনে ডেটা ক্যারেক্টার বাই ক্যারেক্টার ট্রান্সমিট হওয়াকে বলা হয় অ্যাসিনক্রোনাস ট্রান্সমিশন মেথড । আর ডেটা ব্লক আকারে ট্রান্সমিট হওয়াকে বলা হয় সিনক্রোনাস ট্রান্সমিশন মেথড ।অ্যাসিনক্রোনাস ট্রান্সমিশনে একটি ক্যারেক্টার ট্রান্সমিট হবার পর আরেকটি ক্যারেক্টার ট্রান্সমিট করার মাঝখানে বিরতির সময় সমান নাও হতে পারে। ফলে অ্যাসিনক্রোনাস ট্রান্সমিশনের সময় তুলনামূলক বেশি লাগে।

কিন্তু সিনক্রোনাস মেথডে প্রতি ব্লকে বিরতির সময় সমান থাকে।ফলে সিনক্রোনাস মেথডে সময় তুলনামূলক কম লাগে। অ্যাসিনক্রোনাস ট্রান্সমিশনে গতি কম ও দক্ষতা কম। কিন্তু সিনক্রোনাস পদ্ধতিতে ডেটা চলাচলের গতি বেশি ও দক্ষতা বেশি। তাই সিনক্রোনাস পদ্ধতি তুলনামূলক বেশি ব্যয়বহুল। তবে অ্যাসিনক্রোনাস ট্রান্সমিশনের তুলনায় সিনক্রোনাস ট্রান্সমিশনের ব্যান্ডউইথ বেশি বলে দূরবর্তী স্থানে পাঠানাের জন্য এটি ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। বিশেষ করে বড় ধরনের নেটওয়ার্কসহ মােবাইল ফোন নেটওয়ার্ক, টিভি নেটওয়ার্ক ইত্যাদি ক্ষেত্রে এটি অপরিহার্য।উপরােক্ত আলােচনার প্রেক্ষিতে বলা যায় যে, উদ্দীপকে ট্রান্সমিশন পদ্ধতি দুটির মধ্যে সিনক্রোনাস ট্রান্সমিশনের দক্ষতা বেশি।

আইসিটি ২য় অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর( ICT 2nd Chapter CQ Question and Answer)

কুমিল্লা বোর্ড ২০১৯

৫।

আইসিটি ২য় অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন <a href=ও উত্তর” class=”wp-image-6551″/>

একটি কলেজের কম্পিউটার ল্যাবের কম্পিউটারগুলাে উপরের প্যাটার্নে সংযুক্ত রয়েছে ।

ক. ক্লাউড কম্পিউটিং কী?
খ. হাবের চেয়ে সুইচ উত্তম’- ব্যাখ্যা কর।
গ. উদ্দীপকে ব্যবহৃত চিত্রের নেটওয়ার্কটি দূরত্বের বিচারে কোন ধরনের ব্যাখ্যা কর।
ঘ. উদ্দীপকে ব্যবহৃত চিত্রে- ১, ২, ৩ নং কম্পিউটার । এবং ২, ৩, ৪, ৫নং কম্পিউটারে ডেটা শেয়ারে নেটওয়ার্ক টপােলজির মধ্যে কোনটি উত্তম? উত্তরের সপক্ষে যুক্তি দেখাও।

ক) নিজস্ব ছােট্ট কম্পিউটারে ইন্টারনেট সংযােগের মাধ্যমে একটি বিশালাকার কম্পিউটার ভাড়া করে । যথেচ্ছা ব্যবহার এবং যাবতীয় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সেই কম্পিউটারে সংরক্ষণের ধারণাটি হলাে ক্লাউড।

হাব ও সুইচের মূল পার্থক্য বুদ্ধিমত্তায় । হাবের ভেতর বুদ্ধিমত্তানেই, এটি বিভিন্ন ডিভাইসের নেটওয়ার্কিং পাের্টগুলাের ভেতর একধরনের পরিবাহিক যােগাযােগ ছাড়া আর কিছুই নয়। হাবে ডেটা সংঘর্ষের আশঙ্কা থাকে এবং নেটওয়ার্কে সিগন্যাল জ্যাম বেড়ে যায় । অন্যদিকে সুইচ সংঘর্ষ এড়ানাের জন্য প্রতিটি কম্পিউটারের MAC অ্যাড্রেস ব্যবহার করে শুধু সুনির্দিষ্ট পাের্টে সিগন্যালটি পাঠায় । এছাড়া দুর্বল হয়ে পড়া সংকেতকে অ্যামপ্লিফাই করে গন্তব্যে প্রেরণ করে । এসব কারণে ডেটা প্রেরণে হাবের চেয়ে সুইচ উত্তম।

গ) আকার, দূরত্ব ভৌগােলিক বিস্তৃতির উপর ভিত্তি করে কম্পিউটার নেটওয়ার্ককে বিভিন্ন ভাগে ভাগ করা যায়। উদ্দীপকে ব্যবহৃত চিত্রের নেটওয়ার্কটি দূরত্বের বিচারে ল্যান নেটওয়ার্ক। LAN শব্দের পূর্ণনাম Local Area Network। একই ভবনের একইতলায় বা বিভিন্ন তলায়, পাশাপাশি ভবন বা নির্দিষ্ট একটি ক্যাম্পাসে বিভিন্ন কম্পিউটারগুলাের সাথে সংযােগ স্থাপন করে LAN করা হয় । LAN-এর উল্লেখযােগ্য কিছু বৈশিষ্ট্য হলাে-

১. সাধারণত ১০০ মিটার বা সীমিত দূরত্বের মধ্যে এ ব্যবস্থা গড়ে উঠে।
২. ছােট অফিস-আদালত, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে কিংবা একটি ভবন বা স্বল্প দূরত্বে অবস্থিত কয়েকটি ভবনে স্থাপিত অসংখ্য কম্পিউটারের মধ্যে এই নেটওয়ার্ক গড়ে তােলা হয় ।
৩. এতে অনেক ডিভাইস অ্যাকসেস পাওয়া যায় এবং রিপিটার ব্যবহার করে এর বিস্তৃতি সর্বোচ্চ 1 কি.মি. করা যায়।
৪. LAN এর টপােলজি সাধারণত বাস, স্টার, ট্রি ও রিং হয়ে থাকে।

ঘ প্রশ্নের উত্তর

যেহেতু কলেজের কম্পিউটার ল্যাবের বিস্তৃতি 50-100 মিটার এর মধ্যে বিদ্যমান থাকে। তাই বলা যায়, নেটওয়ার্কটি ল্যান (LAN)। উদ্দীপকে ১, ২ ও ৩ নং কম্পিউটারে রিং টপােলজি এবং ২,৩, ৪ ও ৫ নং কম্পিউটারে মেশ টপােলজি গঠিত। এদের মধ্যে মেশ টপােলজি উত্তম।

১। মেশ টপােলজিতে যেকোনাে দুইটি কম্পিউটারের মধ্যে দ্রুত ডেটা আদান-প্রদান করা যায়। কিন্তু রিং টপােলজিতে ডেটা চলাচলের গতি কম এবং খরচও বেশি।

২। মেশ টপােলজিতে কোনাে কম্পিউটার নষ্ট হয়ে গেলে অন্যকম্পিউটারে ডেটা আদান-প্রদানে কোনাে সমস্যা হয় না। কিন্তু রিং টপােলজিতে কোনাে কম্পিউটার (১, ২ ও ৩ এর মধ্যে) যেকোনােটি নষ্ট হয়ে গেলে সম্পূর্ণ নেটওয়ার্ক অচল হয়ে পড়ে।

৩। মেশ টপােলজির নেটওয়ার্কের সমস্যা খুব সহজে সমাধান করা যায় ।কিন্তু রিং টপােলজি যেকোনাে সমস্যা নিরূপণ করা বেশ জটিল।

৪। মেশ টপােলজিতে এক নােড় থেকে অন্য নােডে ডেটা সরাসরি স্থানান্তর করা যায় । কিন্তু রিং টপােলজিতে কম্পিউটারের সংখ্যা বাড়ালে ডেটা পারাপারের সময়ও বেড়ে যায় ।উপরে বর্ণিত আলােচনার প্রেক্ষিতে এটি স্পষ্ট যে, রিং টপােলজির চেয়ে মেশ টপােলজিই উত্তম।

আইসিটি ২য় অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর( ICT 2nd Chapter CQ Question and Answer)

(মা বো ২০১৯)

৬। আইসিটি শিক্ষক ক্লাসে বললেন রেডিও , টেলিভিশন, টেলিফোন ও মোবাইল ফোন আমাদের দৈনন্দিন জীবনে বহুল ব্যবহৃত যোগাযোগ ব্যবস্থা । সাধারণত উক্ত যোগাযোগ ব্যবস্থায় ক্যাবলসমূহ তড়িৎ চোম্বকীয় প্রভাব মুক্ত নয়। বর্তমানে ব্যয়বহুল হলেও তড়িৎ চোম্বকীয় প্রভাবমুক্ত বিকল্প পদ্ধতি রয়েছে।

ক) সিরিয়াল ডেটা ট্রান্সমিশন কী?
খ ) ৪জি এঁর গতি ৩জি এঁর থেকে ৫০ গুন বেশি-ব্যাখ্যা কর।
গ) উদ্দীপকে উল্লিখিত ডিভাইস সমূহে যে পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় তা বর্ণনা কর।
ঘ) বিকল্প পদ্ধতিটি কি হতে পারে তার স্বপক্ষে যুক্তি দাও।

ক ) যেকোনাে দূরত্বে অবস্থিত প্রেরক ও প্রাপকের মধ্যে ডেটার বিট বিন্যাস অনুক্রমিক বা ধারাবাহিকভাবে এক বিটের পর অপর একটি বিট স্থানান্তরিত হলে তাকে সিরিয়াল ডেটা ট্রান্সমিশন বলে ।

4G বা চতুর্থ প্রজন্মের প্রযুক্তিগত বৈশিষ্ট্য হলাে 3G প্রযুক্তির সার্কিট সুইচিং বা প্যাকেট সুইচিং ডেটা ট্রান্সমিশনের পরিবর্তে ইন্টানেট প্রােটোকল ভিত্তিক নেটওয়ার্কের ব্যবহার। এটি উচ্চগতির (100 Mbps – 1 Gbps) ওয়্যারলেস ব্রডব্যান্ড সার্ভিস । 3G প্রযুক্তির ডেটা ট্রান্সফার রেট মাত্র 2 Mbps । অর্থাৎ 4G এর ক্ষেত্রে এ গতি 3G এর চেয়ে ৫০ গুণ বেশি।

উদ্দীপকে উল্লিখিত ডিভাইসসমূহ হলাে রেডিও, টেলিভিশন, টেলিফোন ও মােবাইল ফোন। ডিভাইসমূহের মধ্যে রেডিও ও টেলিভিশনে সিমপ্লেক্স পদ্ধতিতে এবং টেলিফোন ও মােবাইল ফোনে ফুল-ডুপ্লেক্স পদ্ধতিতে ডেটা প্রবাহিত হয়।

সিমপ্লেক্স মােড : যে পদ্ধতিতে ডেটা শুধু একদিকে প্রেরণ করা যায় তাকে সিমপ্লেক্স মােড় বলে। আমরা যখন রেডিও শুনি বা টেলিভিশন দেখি তখন শুধু শােনা বা দেখা ছাড়া আর কিছু করার থাকে না ।এক্ষেত্রে আমরা শুধু ডেটা পাই, পাঠাতে পারি না। অর্থাৎ প্রেরক প্রাপকের কাছে ডেটা পাঠাতে পারে, কিন্তু প্রাপক প্রেরকের কাছে পাঠাতে পারবে না। অর্থাৎ রেডিও, টেলিভিশনে সিমপ্লেক্স পদ্ধতিতে ডেটা প্রবাহিত হয়।

ফুল-ডুপ্লেক্স মােড় : যে পদ্ধতিতে ডেটা একই সাথে উভয়দিকে আদান-প্রদান করা যায়, তাকে ফুল ডুপ্লেক্স মােড় বলে। বর্তমানে আমরা স্বাচ্ছন্দ্যে কথা বলার জন্য টেলিফোন, মােবাইল ফোন ব্যবহার করে থাকে। এসব প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রেরক ও প্রাপক একই সাথে। তথ্য আদান-প্রদান করতে পারে। তাই টেলিফোন এবং মােবাইল ফোনে ফুল-ডুপ্লেক্স পদ্ধতিতে ডেটা প্রবাহিত হয়।

ঘ প্রশ্নের উত্তর

উদ্দীপকে উল্লিখিত বিকল্প পদ্ধতিটি হলাে অপটিক্যাল ফাইবার ।হাজার হাজার কাচের তন্তু দিয়ে তৈরি যে ক্যাবলের মাধ্যমে আলাের গতিতে ডেটা আদান-প্রদান করা হয় তাকে অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবল বলে । এ ক্যাবলের মধ্য দিয়ে ডেটা স্থানান্তরের ক্ষেত্রে লেজার রশ্মি ব্যবহার করা হয়। ফাইবার অপটিক ক্যাবল বিশেষভাবে পরিশুদ্ধ কাচের তৈরি অত্যন্ত সূক্ষ্ম তন্তু, যদিও বিশেষায়িত কাজের জন্য প্লাস্টিক বা অন্য কোনাে স্বচ্ছ মাধ্যমের তৈরি ফাইবার অপটিক ক্যাবলও পাওয়া যায় ।

ফাইবার অপটিক ক্যাবলের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এটি ইনফ্রারেড আলাের একটি রেঞ্জের ভেতর (1300-1500 nm) অবিশ্বাস্য রকম স্বচ্ছ, তাই শােষণের কারণে বিশেষ কোনাে লস ছাড়াই এর ভেতর দিয়ে সিগন্যাল দীর্ঘ দূরত্বে নেয়া যায়।ফাইবার অপটিক ক্যাবলের কেন্দ্রের অংশটুকুর প্রতিসরাংক বাইরের অংশের প্রতিসরাংক থেকে বেশি। যে অংশের প্রতিসরাংক বেশি তাকে কোর (Core) বলে এবং যে অংশের প্রতিসরাংক কম তাকে ক্ল্যাড(Clad) বলে।

প্রতিসরাংকের পার্থক্যের কারণে পূর্ণ অভ্যন্তরীণ প্রতিফলনের মাধ্যমে কোনাে লস ছাড়াই কোরের ভেতর দিয়ে আলাে যেতে পারে। এখানে কোনাে তড়িৎ সিগন্যাল প্রবাহিত হয় না। ফলে এর চারপাশ দিয়ে কোনাে তড়িৎ চৌম্বকীয় আবেশ তৈরি হয় না। তাই মাধ্যম হিসেবে অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবল তড়িৎ চৌম্বক প্রভাবমুক্ত।

আইসিটি ২য় অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর( ICT 2nd Chapter CQ Question and Answer)

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

Leave a Reply